1. admin@dainikprothomkagoj.com : admin :
টেকারঘাট বালিকা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ - দৈনিক প্রথম কাগজ
রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৮:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
রৌমারী দূর্ভোগ থেকে রেহাই পেয়ে এমপিকে ধন্যবাদ বিশ্ব সন্ত্রাসী ইসরাইলের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রেরণের ব্যবস্থা করতে হবে- মাওঃ আব্দুল আউয়াল রৌমারীতে মুক্তিযোদ্ধাকে হুমকি ও জীবনাশের অভিযোগে মানববন্ধন ফরিদপুরে শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদে যশোরে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল রৌমারীতে এলডিডিপি প্রকল্পে অর্থ হরিলুট প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ ইসলামী শ্রমনীতি ও আদর্শের আলোকে দেশ পরিচালিত না হওয়ায় রাজনৈতিক নিপিড়ন থামছে না- এইচ এম সাইফুল ইসলাম খুলনায় মহান মে দিবস পালিত-দৈনিক প্রথম কাগজ রৌমারীতে সকল শ্রমিক সংগঠনের মে দিবস পালিত যশোরে ইসলামী আন্দোলন এর পক্ষ থেকে তীব্র তাপদাহে তৃষ্ণার্ত পথচারীদের মাঝে শরবত বিতরণ রৌমারীতে সিএসডিকে নির্বাহী পরিচালক হানিফের বিরুদ্ধে অনৈতিক কর্মকান্ডে থানায় অভিযোগ

টেকারঘাট বালিকা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৫ জুন, ২০২৩
  • ৪৯ Time View

টেকারঘাট বালিকা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

মনিরামপুর যশোর :-মনিরামপুর উপজেলার
টেকারঘাট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। জানা যায় অত্র প্রতিষ্ঠানের প্রাক্তন সভাপতি পবিত্র কুমার বিশ্বাস দায়িত্ব পালন শেষ করলে নুতন সভাপতি হওয়ার পুর্বে বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কল্যান কুমার মন্ডল আমাকে টিউশন ফিসের টাকার চেকে সহি করতে বলেন কিন্তু আমি চেকে সহি না করলেও সুচতুর প্রধান শিক্ষক কৌশলে চেকে সহি সম্পাদন করে সমুদয় টাকা আত্মসাৎ করেন। আমি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান উক্ত টাকা সকল শিক্ষকদের মাঝে বিতরন করবেন কিন্তু খোজ নিয়ে জানতে পারি তিনি সেটা করেননি। আমি তখন উনাকে পরবর্তী কমিটির সাহায্য নিয়ে ব্যাংক হিসাবে আমার নাম পরিবর্তন করার পরামর্শ দিই কিন্তু তিনি বলেন উক্ত কাজের জন্য সময়ের প্রয়োজন। এবার টাকা উত্তোলোনের পরে নাম পরিবর্তন করে নিব তখন আমি প্রতিষ্ঠানের কথা চিন্তা করে চেকে সহি করি। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা যায় কোনো শিক্ষকের সাথে টিউশন ফিসের টাকার আলোচনা না করে তিনি সকল টাকা আত্মসাৎ করেন।উল্লেখ থাকে যে আমার মেয়াদকালে তার নিকট বিদ্যালয়ের হিসাব জানতে চাইলে তিনি গড়িমশি করে সময় পার করেন।তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহনের কথা বল্লে তিনি মৌখিক ভাবে হিসাবের কথা বলতেন তার কোনো ডকুমেন্ট দেখতে পারতেন না। নিজে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ পাওয়ার জন্য শিক্ষকদের ভিতরে গ্রুপি করে রাখেন।বর্তমানে তিনি শিক্ষক প্রিতিনিধি পদে নিজে ভোট প্রয়োগ করবেন বলে ভোটার তালিকায় নাম অন্তভুর্ক্ত করেন।আমরা পূর্ববর্তী সভপতির নিকট জানতে চাইলে তিনি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দুর্নিতীর কথা স্বীকার করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Categories

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
সাইট নির্মাণ করেছেন ক্লাউড ভাই